কান্দিরপাড়-প্রসন্নকাপ রাস্তা সংস্কার ও পাঁকাকরণের দাবী এলাকাবাসীর

image

চাঁদপুর প্রতিনিধি-

চাঁদপুরের কচুয়ার ৫নং পশ্চিম সহদেবপুর ইউনিয়নের সর্বশেষ সীমান্তবর্তী ০৪ নং ওয়ার্ড কান্দিরপাড় গ্রামের তুলপাই-চারট ভাঙ্গা রাস্তাটি জনদূর্ভোগে পরিণত হয়েছে। 

রাস্তাটি ২০০০ ইং সালে তুলপাই হইতে প্রসন্নকাপ গ্রামের পশ্চিমাংশ পর্যন্ত পাকা করন করা হয়েছে কিন্তু কান্দিরপাড় গ্রামের পূর্ব সীমানা হতে চারট ভাঙ্গা বাজার পর্যন্ত প্রায় ২ কি.মি. রাস্তা পাকা না করে কাঁচা অবস্থায় ফেলে রাখা হয়েছে। এমনকি বিগত ৩ বৎসর পূর্বেও রাস্তাটির প্রসন্নকাপ অংশ পর্যন্ত পাকা সংস্কার করা হলেও কান্দিরপাড় অংশটুকুই কাঁচা অবস্থায় ফেলে রাখে কর্তৃপক্ষ।

সরজমিনে দেখা যায়, রাস্তাটি ব্যবহার করছে তুলপাই, সহদেবপুর, ফতেপুর, প্রসন্নকাপ ও কান্দিরপাড় গ্রামের শত শত মানুষ। চারট ভাঙ্গা বাজারে যাতায়াতের একমাত্র পথ। শত শত স্কুল- কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতেও রাস্তাটির ব্যবহার কমতি নেই।

এলাকাবাসী মোঃ শাহনেওয়াজ বলেন,  বৃষ্টিপাত ও রাস্তার উভয় পাশের ডোবা ও পুকুরের ভাঙ্গনের কারনে রাস্তাটি সরু হয়ে গেছে। এই রাস্তা দিয়ে সিএনজি, রিক্সা তো দূরের কথা হেঁটে যেতেও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। মেরামতের প্রয়োজন। কিন্তু কর্তৃপক্ষের কেন সাড়া নেই।

স্থানীয় মোঃ কামরুল হাসান বলেন, বৃষ্টির দিনে কর্দমাক্তের কারনে ছাত্র ছাত্রীদের স্কুল ও ব্যবসায়ীদের বাজারে যাতায়াত প্রায়ই বন্ধ থাকে। অসুস্থ অবস্থায় রোগী বা গর্ভবতী মা বোন উক্ত রাস্তায় যানবাহন চলাচলে সমস্যার কারনে চিকিৎসা সেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছে।  এমতাবস্থায় প্রসন্নকাপ পশ্চিমাংশ হইতে চারট ভাঙ্গা বাজার পর্যন্ত কান্দিরপাড় গ্রামের কাঁচা অংশটুকু সংস্কার ও পাকাকরন অতীব জরুরী।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুস সামাদ আজাদ বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে দেশে গ্রামীন রাস্তার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছানুযায়ী গ্রাম হবে শহর বাস্তবায়ন করতে হলে আমি মনে করি এ রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরন করা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে আমাদের সাংসদ ড. মহীউদ্দিন খান আলমগীর এমপির বরাবর লিখিত চিঠি আমাদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

কচুয়া উপজেলা প্রকৌশলী সৈয়দ জাকির হোসেন সাথে বারবার চেষ্টা করে ও যোগাযোগ করা যায় নি।

আন্দোলন৭১/রাছেল/কাজী