ঢাকা সোমবার,২৩,সেপ্টেম্বর, ২০১৯

দেশে পর্যাপ্ত সংখ্যক কোরবানিযোগ্য গবাদিপশু রয়েছে

image

অর্থনীতি ডেস্ক-

আসন্ন ঈদুল আজহায় এক কোটি ১০ লাখ পশুর কোরবানি হতে পারে বলে জানিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। আর এই চাহিদার পুরোটাই দেশে রয়েছে বলেও জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সুত্রে জানা যায়, কোরবানিযোগ্য গবাদি পশু রয়েছে প্রায় এক কোটি ১৮ লাখ। যার মধ্যে গরু-মহিষের সংখ্যা পঁয়তাল্লিশ লাখ ৮২ হাজার এবং ছাগল-ভেড়া ৭২ লাখ। এছাড়াও ছয় হাজার ৫৬৩টি অন্য পশু রয়েছে। ফলে এবারেও দেশীয় পশুতেই কোরবানি দেয়া সম্ভব।

আজ মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এক আন্তমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জানানো হয়, কুরবানির বাজারে স্বাস্থ্যসম্মত পশুর সরবরাহ ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের যাবতীয় উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এক বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

আজকের সভায় ঈদুল আজহার পশুর সংখ্যা নিরূপণ, কোরবানির হাটবাজারে স্বাস্থ্যসম্মত পশুর ক্রয়-বিক্রয় ও স্বাস্থ্যসেবা, বিক্রেতাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলা হয়। পশুর গাড়ি ছিনতাই রোধ এবং দেশের পশু বিক্রেতাদের স্বার্থে ঈদুল আজহা পর্যন্ত সীমান্তপথে বৈধ-অবৈধ সকলপ্রকার গবাদিপশুর অনুপ্রবেশ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় জানানো হয়, দেশ মাংসে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের পর থেকে ভারতীয় গরুর অনুপ্রবেশ উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। আগে প্রতি বছর ২৪-২৫ লাখ ভারতীয় গরু আসত। ২০১৮ সালে মাত্র ৯২ হাজার গরু ঢুকেছে।

গত বছর ঈদে কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর মোট সংখ্যা ছিল এক কোটি ১৫ লাখ এবং কোরবানি হয়েছিল এক কোটি ৫ লাখের মতো। 

মন্ত্রণালয় আরও জানায়, আসন্ন ঈদে ঢাকাসহ দেশের উল্লেখযোগ্য হাটবাজারে পশুর স্বাস্থ্যসেবার লক্ষ্যে পশু চিকিৎসকদের দল প্রস্তুত থাকবে। ঢাকায় দুটি সিটি করপোরেশনের আওতায় মোট ২৪টি স্থায়ী-অস্থায়ী কোরবানির হাটে দুটি করে দল কাজ করবে। দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় ১৪টি এবং উত্তরের অধীনে মোট ১০টি হাটবাজার বসবে এবার।

মৎস্য প্রতিমন্ত্রী পশু ব্যবসায়ীর কাছে থেকে চাঁদা আদায়সহ অতিরিক্ত হাসিল-আদায় রোধ এবং ব্যাপারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন।

সভায় মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াসি উদ্দিন, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক নাথুরাম সরকারসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের কর্মচারীরা অংশগ্রহণ করেন।

আন্দোলন৭১/কাজী