ঢাকা বুধবার,২১,আগস্ট, ২০১৯

নুসরাতের ঘরে ঈদ আনন্দ নেই, শোক এখন শক্তি

image

ডেস্ক নিউজ-

দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে ঈদুল আযহা। সবার মাঝে রয়েছে ঈদ আনন্দ। তবে ফেনীর সোনাগাজীতে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা নুসরাত জাহান রাফির পরিবারে নেই ঈদের আনন্দ। তার পরিবার এখন শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করেছে। তাদের এখন একটাই চাওয়া নুসরাত হত্যার বিচার। এমন বার্তা-ই ছিলেন নুসরাতের ছোট ভাই রায়হান।

''আপু নেই তাই ঈদের আনন্দ ও নেই। শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে এখনো বেঁচে আছি। ওই মানুষরূপী হায়েনাদের ফাঁসির দড়িতে দেখবো বলে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতির অহংকার। নব বাংলাদেশের রূপকার, মমতাময়ী মা, দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাদের ফ্যামিলিকে ডেকে নিয়ে একজন মমতাময়ী মায়ের পরিচয় দিয়েছেন। আমরা তার কাছে বলেছি আমার আপুর হত্যাকারীদের যেন দ্রুত বিচার ও সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হয়। তিনি আমাদের নিশ্চিত করেছেন, বিচারে কোন দুর্বলতা রাখা হবে না। আসামিদের রেহাই দেওয়া হবে না বলে তিনি বারবার অবগত করেছেন জাতিকে। সর্বশেষ জাতীয় সংসদেও উপস্থাপন করেছেন একাধিকবার। তিনি জানিয়েছেন ওই খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে উনার সর্বাত্মক সহায়তা সর্বাবস্থায় থাকবে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বিচার প্রশাসনের প্রতি আস্থা রেখে আশাবাদী আমার কলিজার টুকরা বোনের নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের জড়িত সকল আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি খুব শীঘ্রই নিশ্চিত করবেন।

একজন দেশ প্রধান, যিনি হাজারো ব্যস্ততার মাঝেও সার্বক্ষণিক মনিটরিং করেছেন আমাদের এই মামলাটি। তারই আলোকে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে মামলার কার্যক্রম। নিঃস্বার্থভাবে একজন মমতাময়ী মায়ের ভূমিকা পালন করে শুরু থেকে এ পর্যন্ত সরকারিভাবে আমাদের সর্বোচ্চ সহায়তা করে এসেছেন।

প্রতিদিন থানা প্রশাসনের একজন এস আই'র নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনীকে নিয়ে প্রতিনিয়ত আমাদের নিরাপত্তার জন্য দায়িত্ব পালন করে আসছেন। আমাদের মামলা দ্রুত গতিতে আগানোর পিছনে একমাত্র সঙ্গী ছিলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কঠোর হস্তক্ষেপ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার মহৎ ও বৃহত্তর মনের অধিকারিণীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করার ভাষা আমাদের সাধারণ ফ্যামিলির সদস্যের কাছে জানা নেই! আপনার অবদানের কথা লিপিবদ্ধ করে শেষ করা যাবে না। চির কৃতজ্ঞ থাকব মমতাময়ী মা আপনার কাছে। মহান আল্লাহর কাছে আপনার সুস্থ জীবন ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।

বোন হারা হতভাগা এই ভাইয়ের আপনার প্রতি আকুতি আপনার সুদৃঢ় নেতৃত্বের মাধ্যমে বাংলার জমিনে এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের বিচার যেন স্বর্ণাক্ষরে আজীবন লিপিবদ্ধ হয়ে থাকে।

শোকের সাগরে বাসিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত আমার কলিজার টুকরা বোনের জন্য দেশ বাসির কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ যেন আমার বোনকে জান্নাতের সর্বোচ্চ স্থান জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন (আমিন)।''

উপরের কথাগুলো নুসরাতের ছোট ভাই রায়হানের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত। তিনি এই লেখাটি ফেসবুকে স্ট্যাটাস আকারে প্রকাশ করেছেন।

আন্দোলন৭১/এস